সর্বশেষ
 নকশী বাংলা ফাউন্ডেশন সিলেটের ইফতার ও দোয়া মাহফিল সাবেক সাংসদ দিলদার হোসেন সেলিম এর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন এম আসকির আলী গ্রীসে বিয়ানীবাজার এর যুবক নিখোঁজ।খুঁজে পেতে সাহায্য কামনা স্পেনের রাজার কাছে পরিচয় পত্র প্রদান করলেন বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত সহজ হলো স্পেনের অভিবাসী আইন, সুবিধা পাবে বাংলাদেশিরা প্রফেসর সিরাজ ওয়াজিদ-এর ভ্রমণকাহিনী গ্রন্থ ‘ভারতের পথে পথে’ এখন বাজারে পাওয়া যাচ্ছে গ্রীসে দুই ভাই এর খুনি শনাক্ত দুই নারীকে ‘কন্ট্রাক্ট ম্যারেজ’ করেছিলেন মামুনুল ফরেন ফ্রেন্ডশিপ অর্গানাইজেশন ট্রাষ্টের উদ্যোগে মাহে রমজানের কর্মসূচী বাস্থবায়ন স্পেনের মাদ্রিদ কমিউনিটির আঞ্চলিক সংসদ নির্বাচনে প্রচারণা

পুলিশে হয়রানির শিকার চিকিৎসকরা

  |  ১৬:১৮, এপ্রিল ১৪, ২০২১

চলমান এক সপ্তাহের কঠোর লকডাউনে ফ্রন্টলাইনার চিকিৎসকদের বাইরে বের হতে বাঁধা নেই এবং কোনো মুভমেন্ট পাস লাগবে না তাদের।

এমনটাই জানিয়েছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক বেনজীর আহমেদ। তবুও সর্বাত্মক এই লকডাউনের প্রথম দিনেই বাইরে বের হয়ে হয়রানির শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন রাজধানীর কয়েকজন চিকিৎসক।

তাদের একজনের নাম কৃষ্ণা হালদার। কুয়েত বাংলাদেশ মৈত্রী সরকারি হাসপাতালের একজন মেডিকেল অফিসার তিনি।

অভিযোগকারী অন্যজন রাজধানীর পান্থপথের একটি হাসপাতালের চিকিৎসক।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এই দুই চিকিৎসক অভিযোগ করেন, লকডাউনে কর্মস্থলে যাওয়ার পথে পুলিশের কাছে ‘বিব্রতকর’ অভিজ্ঞতার শিকার হয়েছেন। এজন্য তাদেরকে জরিমানাও গুণতে হয়েছে।

বিষয়টি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে রীতিমতো।

ফেসবুকে চিকিৎসক কৃষ্ণা হালদার অভিযোগ করে লিখেন, গতরাতে কুয়েত মৈত্রী সরকারি হাসপাতালে আমার নাইট শিফটে ডিউটি ছিল। সকালে আমাকে আমার ব্যক্তিগত প্রাইভেট কার পিক আপ করার সময় কারওয়ানবাজার সিগনালে ড্রাইভার আমার আইডি কার্ড দেখানোর পরেও পুলিশ মামলা করে, জরিমানা করে, সমস্ত কাগজপত্র নিয়ে যায়। পরবর্তীতে আমি তেজগাঁও থানা ও ট্রাফিকের ডিবি পুলিশের কার্যালয় গেলেও কেউ কোনো সহযোগিতা পাইনি। মুভমেন্ট পাস বের করতে পারিনি। এমতাবস্থায় কভিড ডিউটি করা দুঃসাধ্য হয়ে পড়েছে আমার জন্য।

একইরকম অভিযোগ করেছেন এক নারী চিকিৎসক। তিনি জানিয়েছেন তার স্বামী (চিকিৎসক) হাসপাতালে যাওয়ার পথে হয়রানির শিকার হয়েছেন এবং ৩ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে তাকে।

ফেসবুকে ওই নারী চিকিৎসক লিখেছেন, আমার স্বামী স্কয়ার হাসপাতালে কোভিড ইউনিটে কর্তব্যরত আছেন। আজ সকাল ৮টা থেকে তার ডিউটি ছিল। আমাদের বাসায় আমার শ্বশুর কোভিড পজেটিভ হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন। তাই আমার স্বামী (মুন্সীগঞ্জ) থেকে নিজের গাড়ি নিয়ে ডিউটিতে যাচ্ছেন বেশ কিছুদিন যাবৎ। আজ সকালে আমাদের গাড়ি সাইনবোর্ডের একটু পরে পুলিশ গাড়ি থামিয়ে ৩০০০ টাকা জরিমানা করে। আমার হাসব্যান্ডের সাথে তার কর্মস্থলের আইডি কার্ড ছিল।

তাতেও কোনো কাজ হয়নি বলে জানান ওই নারী চিকিৎসক।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ