সর্বশেষ
 এনআরবি ব্যাংকের ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন মোঃ জামিল ইকবাল মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় যুবলীগ নেতাকে কোপালেন আরেক নেতা ৫৫ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশী পাসপোর্ট নিয়ে সৌদি গেছেন: রাষ্ট্রদূত আওয়ামী লীগের বিধানে দয়ামায়ার লেশমাত্র নেই: ফখরুল ২৮ জেলায় নির্মিত হবে সিনেপ্লেক্স: তথ্যমন্ত্রী ঢাকা ফ্রুটাস কোম্পানি স্পেন শ্রমিকদের বেতন বৃদ্ধি ও স্বাস্থ্য সুরক্ষায় উদ্যোগ প্রথম দিনেই যেসব কাজ করবেন বাইডেন মালালা শিক্ষাবৃত্তির বিলে সই করলেন ট্রাম্প নোয়াখালীতে আবারও নারীকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ লন্ডনের কুইন্স পার্কে মাস্ক বিহীন হেল্থ সেক্রেটারি সমালোচিত

আফ্রিকায় আবারো ঝাঁকে ঝাঁকে পঙ্গপাল

  |  ০৮:১৯, ডিসেম্বর ১৯, ২০২০

ঝাঁকে ঝাঁকে পঙ্গপালের কারণে পূর্ব আফ্রিকা ও আরব বিশ্বের কয়েকটি দেশের লাখ লাখ মানুষের জীবিকা আবারো বড় ধরনের হুমকির মুখে পড়েছে বলে জাতিসংঘ সতর্ক করে দিয়েছে।

বছরখানেক আগেও এসব দেশে পঙ্গপালের হানার কারণে ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছিল।

এরপর প্রচুর কীটনাশক ছিটিয়ে এসব পঙ্গপাল নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করা হয়েছে। কিন্তু এখন জাতিসংঘ বলছে, তাতে খুব একটা কাজ হয়নি বলেই মনে হচ্ছে।

শুক্রবার এক বিবৃতিতে জাতিসংঘ বলছে, মরুভূমির এসব পঙ্গপালের বংশ বিস্তারের জন্য ইথিওপিয়ার পূর্বাঞ্চলে এবং সোমালিয়াতে এখনো আদর্শ পরিবেশ বজায় রয়েছে। এর ফলে ঝুঁকির মুখে রয়েছে কেনিয়াও।

কর্মকর্তারা বলছেন, লোহিত সাগরের উভয় পাশে প্রচুর পঙ্গপালের জন্ম হচ্ছে যার ফলে ইরিত্রিয়া, সৌদি আরব এবং ইয়েমেনও নতুন করে হুমকির মুখে পড়েছে। বলা হচ্ছে, পূর্ব আফ্রিকাতে এ বছর পঙ্গপালের যে ধরনের আক্রমণের ঘটনা ঘটেছে, গত ৭০ বছরের ইতিহাসে সে রকম কখনো চোখে পড়েনি।

কেনিয়াতে এই হুমকি আসন্ন, এখন থেকে যে কোনো সময়ে তারা হানা দিতে পারে এ কথা বলেছেন কিথ ক্রেসমান, জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি বিষয়ক সংস্থার ঊর্ধ্বতন একজন কর্মকর্তা। পঙ্গপালের আক্রমণের পূর্বাভাস নিয়ে কাজ করেন তিনি।

ক্রেসমান বলেন, এবারকার পরিস্থিতি গতবারের মতোই খারাপ হতে পারে। কারণ বিভিন্ন দেশের সাড়ে তিন লাখ বর্গকিলোমিটার বিস্তৃত এলাকায় এসব পঙ্গপালের বংশবৃদ্ধি ঘটছে।এ বছরের জানুয়ারি থেকে অগাস্ট পর্যন্ত কোটি কোটি পঙ্গপাল পূর্ব আফ্রিকার দেশগুলোতে আক্রমণ করে ব্যাপক ফসলহানি ঘটিয়েছে।

পঙ্গপালের আক্রমণের কারণে আমরা অনেক পশুচারণ ভূমি এবং গাছপালা হারিয়েছি আর এ কারণে এখনো আমাদের প্রচুর গবাদিপশু মারা যাচ্ছে- বলেন কেনিয়ার উত্তরাঞ্চলীয় একজন পশু খামারি গঞ্জোবা গুইয়ো।

তিনি বলেন, পঙ্গপালের প্রকোপের কারণে আমি ১৪টি ছাগল, চারটি গর্নু এবং দুটো উট হারিয়েছি।

এখনো ভীতি তৈরি হয়েছে যে আমরা আবারো একই ধরনের পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে পারি কিংবা এর পরিণতি আগের বারের চেয়েও খারাপ হতে পারে। জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার কর্মকর্তারা বলেছেন, তবে এই অঞ্চলের দেশগুলো পরিস্থিতি মোকাবেলায় এখন আগেরবারের তুলনায় ভালোভাবেই প্রস্তুত রয়েছে

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ