সর্বশেষ

টেকনাফের ছেলে লন্ডনের বিভিন্ন ইউনিভার্সিটি থেকে ৪টি বিষয়ে ডিগ্রিসহ ব্যারিষ্টারি পাশ

  |  ১৪:৪০, নভেম্বর ০৭, ২০২০

টেকনাফের ছেলে লন্ডনের বিভিন্ন ইউনিভার্সিটি থেকে ৪টি বিষয়ে ডিগ্রিসহ ব্যারিষ্টারি পাশ

আজিজ উল্লাহ, বিশেষ প্রতিবেদক:

টেকনাফের বাহারছড়া শামলাপুরের এক ছেলে অদম্য অভিপ্রায়ে লন্ডনের আলাদা আলাদা ইউনিভার্সিটি থেকে ৪টি বিষয়ে ডিগ্রি অর্জনসহ “বার এট ল” বা ব্যারিষ্টারি পাশ করছেন।

জানা যায়,গত ২০১০ সালে লন্ডনে বার এট ল সহ উচ্চ ডিগ্রি অর্জনের লক্ষ্যে স্থানীয় শামলাপুরের ১নং ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য আব্দুল হকের ছেলে মোহাম্মদ বেলাল লন্ডনে যান।সেখানে ‘দ্যা ইউনিভার্সিটি অব ল’ থেকে ব্যারিষ্টারি পাশ করার আগে তিনি লন্ডনের ব্রিট কলেজ থেকে হেল্থ কেয়ার ইন ম্যানেজমেন্টে ডিগ্রি, লন্ডনের গ্লেন্ডওর ইউনিভার্সিটি থেকে মার্কেটিং বিষয়ে ডিগ্রি এবং নর্দামব্রিয়া ইউনিভার্সিটি থেকে ম্যানেজম্যানের উপর মাস্টার্সসহ “দ্যা ইউনিভার্সিটি অব ল” লন্ডন থেকে মাস্টার্স ইন ল ডিগ্রি লাভ করেন।
এই বছর তিনি আবার লন্ডনের “দ্যা ইউনিভার্সিটি অব ল” থেকে “বার এট ল” পাশ করে ব্যারিষ্টার হন।
নভেম্বর,২০২০ চলিত সনে অথবা মার্চ ২০২১ তাদের The Honourable Society of Lincoln’s Inn থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে উইগস পরিয়ে বিদায় জানানোর অপেক্ষায় রয়েছে সদ্য “বার এট ল” পাশ করা শিক্ষার্থীরা৷ The Honourable Society of Lincoln’s Inn থেকে ভারতীয় উপমহাদেশের নেতা মহাত্মা গান্ধী, জহুর লাল নেহেরু, কায়েদে আজম মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ সহ ড. কামাল হোসেন, ব্যারিষ্টার মওদুদ আহমেদ ‘বার এট ল’তে পড়াশোনা করছিলেন।

উল্লেখ্য, মোহাম্মদ বেলাল ২০০২ সালে শামলাপুর হাইস্কুল থেকে ৯ম শ্রেণী থেকে রামু খিজারী মডেল হাইস্কুল থেকে ২০০৩ সালে এসএসসি পাশ করে এবং ২০০৫ সালে কক্সবাজার সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষা শেষে চট্টগ্রাম কলেজে দর্শন বিভাগ থেকে সম্মান শেষ করে স্বপ্ন দেখে লন্ডন থেকে বার এট ল পড়ানোর জন্য এই লক্ষ্যে শুরু করেন আইইএলটিএস অবশেষে ৬.৫০ পেয়ে আইইএলটিএস শেষ করে ২০১০ সালে লন্ডনে যাওয়ার প্রসেসিং করে উচ্চতর ডিগ্রি অর্জনের লক্ষ্যে পাড়ি জমায় লন্ডন আজ অজপাড়াগাঁ গ্রামটির সেই ছেলের অদম্য আগ্রহ আর ঘামঝরা পরিশ্রম করে নিজের টিউশন ফি নিজেই শোধ করে লন্ডনের নামি-দামি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র হিসেবে জায়গা করে নেওয়ার কৃতিত্ব অর্জন করে ২টি ডিক্রিসহ ৩টি সাব্জেক্টের উপর মাস্টার্স শেষ করেন।

বেলালের সাথে যোগাযোগ করলে লন্ডন টাইমস নিউজকে বলেন,”আমি তেমন স্বচ্ছল পরিবারের সন্তান নয় দেশ থেকে যথেষ্ট টাকা পয়সা আনা সম্ভব ছিল না তাই পড়াশোনার পাশাপাশি প্রায় ৩টি জব করতাম অক্লান্ত পরিশ্রম করে ভার্সিটির ফি দিতে হত।লজ্জা পাওয়ার কিছু নেই পড়াশোনার খরচ ও দেশে রেমিট্যান্স পাঠাতে রেস্তোরেন্টের ওয়াইটারের কাজসহ জাপানের একটা কোম্পানিতে ম্যানেজার হিসেবে কাজ করছি এখন লন্ডনিয়াম সলিসিটর’সের আইনজীবী হিসাবে কর্মতর আছি।লন্ডনে ব্যরিষ্টারি পড়তে আসার জন্য দেশের দামিদামি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে হবে তা নয় যেকোনো সাব্জেক্ট পড়ে শুধু আইইএলটিএস টা শেষ করে অন্তত ৬ পয়েন্টের উপরে রেজাল্ট করে আগ্রহ থাকলে লন্ডনে এসে ‘ল’ এর উপর পড়াশোনা করা যায়।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ