SylhetNewsWorld | ১০ বছর ধরে ফাঁসির অপেক্ষায় থাকা আসামি খালাস - SylhetNewsWorld
সর্বশেষ
 স্পেনে বায়তুল মুকাররম মসজিদের খাদিম আব্দুস শুক্কুর অসুস্থঃদোয়া কামনা দারুল কিরাত মজিদিয়া ফুলতলি ট্রাস্ট মাদ্রিদ শাখার পুরস্কার বিতরণী সম্পন্ন স্পেনে অনুষ্ঠিত হলো বৃহত্তর নোয়াখালী সমিতি’র অভিষেক বাজেট অনুষ্ঠানে মেয়র আরিফের ঘোষণায় বিব্রত সাংবাদিকরা স্পেন থেকে আফগানিস্তান থেকে উদ্ধারকৃত ছয়জন বাংলাদেশীকে দেশে প্রত্যাবর্তন বাংলাদেশ দূতাবাস এথেন্স-এ ইলেক্ট্রনিক পাসপোর্ট সেবার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন স্বাধীনতার সূবর্ন জয়ন্তিতে স্পেনে ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল সম্পন্ন বসিলায় জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে একটি বাড়িতে অভিযান, আটক ১ জার্মানি থেকে অবৈধ বাংলাদেশিদের দ্রুত ফেরাতে চায় সরকার অন্যকে বাঁচাতে গিয়ে প্রাণ দিলেন রুশ মন্ত্রী

১০ বছর ধরে ফাঁসির অপেক্ষায় থাকা আসামি খালাস

  |  ১৪:৩২, আগস্ট ০৮, ২০২১

স্ত্রী হত্যার দায়ে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত বাগেরহাটের মোলারহাট উপজেলার সাহেব আলী ফকিরকে খালাস দিয়েছেন আপিল বিভাগ। প্রায় ১০ বছর ধরে কনডেম সেলে বন্দি ছিলেন সাহেব আলী ফকির। আর কোনো মামলা না থাকলে তাকে অবিলম্বে মুক্তির নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এ ছাড়া ইনজেকশন দিয়ে বিষ প্রয়োগে স্ত্রীকে হত্যার দায়ে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত বগুড়ার কাহালু উপজেলার গোলাম রব্বানীর মৃত্যুদণ্ডের সাজা কমিয়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আপিল বিভাগ। একইসঙ্গে ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ১৫ দিনের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

এদিকে গোলাম রব্বানীকে কনডেম সেল থেকে সাধারণ সেলে নিতে কারা কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে আপিল বিভাগ রোববার পৃথকভাবে ওই দুটি মামলায় এ রায় দেন। উভয় মামলায় রাষ্ট্রপক্ষে আইনজীবী ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিৎ দেবনাথ। আসামিপক্ষে আইনজীবী ছিলেন রাষ্ট্রনিযুক্ত আইনজীবী অ্যাডভোকেট এসএম আমিনুল ইসলাম।

বাগেরহাট জেলার মোলারহাট থানার আডুয়াদিঘী গ্রামে স্ত্রী শিউলী বেগমকে বিষ প্রয়োগ করে হত্যা মামলায় নিম্ন আদালত ২০১০ সালের ১৫ জুন সাহেব আলী ফকিরকে মৃত্যুদণ্ড দেন। এরপর তার মৃত্যুদণ্ড অনুমোদনের জন্য হাইকোর্টে ডেথ রেফারেন্স পাঠানো হয়। আর আসামিও হাইকোর্টে আপিল করেন। উভয় আবেদনের ওপর শুনানি শেষে তার মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখে ২০১৫ সালের ৫ জুলাই রায় দেন হাইকোর্ট। এরপর এ রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন কনডেম সেলে বন্দি সাহেব আলী। শুনানি শেষে আপিল বিভাগ আজ (রোববার) তাকে খালাস দিয়ে রায় দেন।

ওই মামলার বাদী নিহতের বাবা আদালতে সাক্ষ্য দিয়ে বলেছিলেন, পুলিশ তাকে মামলা করতে বাধ্য করেছে। আর আসামি ১৬৪ ধারায় দেওয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে বলেন, পুলিশ তাকে নির্যাতন করে জবানবন্দি দিতে বাধ্য করেছে। এ ছাড়া নিহতের ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, নির্যাতনের কোনো চিহ্ন নেই। ভিকটিম আত্মহত্যা করেছে বলে প্রতিয়মান হয়। এসব বিবেচনায় নিয়ে দেশের সর্বোচ্চ আদালত সাহেব আলীকে খালাস দেন।

অপরদিকে বগুড়ার কাহালু থানার কাহালু গ্রামের গোলাম রব্বানীর স্ত্রীর মৃত্যু হয় ২০০৬ সালের ২৮ নভেম্বর। ভিকটিমের ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন ও কেমিক্যাল পরীক্ষায় ধরা পড়ে কার্বামেট নামক বিষ প্রয়োগে তাকে হত্যা করা হয়েছে। এ অবস্থায় নিহতের ভাই গোলাম রব্বানীর বিরুদ্ধে হত্যার অভিযোগ এনে আদালতে আবেদন দাখিল করেন। আদালত এই আবেদন মামলার এজাহার হিসেবে গ্রহণ করতে থানাকে নির্দেশ দিলে ২০০৮ সালের জানুয়ারিতে এজাহার গ্রহণ করা হয়। বিচার শেষে নিম্ন আদালত ২০১০ সালের ২১ জুলাই গোলাম রব্বানীকে মৃত্যুদণ্ড দেন। পরবর্তীতে হাইকোর্ট ২০১৫ সালের ৬ ডিসেম্বর এক রায়ে ওই মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখেন। এই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন গোলাম রব্বানী। এ আবেদনের ওপর শুনানি শেষে আজ (রোববার) আসামির সাজা কমিয়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন আপিল বিভাগ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ