সর্বশেষ
 দেশের উন্নয়নই বিএনপির গাত্রদাহের কারণ: কাদের বাংলাদেশিদের একাউন্ট বাড়ছে সুইজারল্যান্ডে: ফখরুল সিলেটে দুই সন্তানসহ স্ত্রী খুনের ঘটনায় স্বামী গ্রেপ্তার দেশে সিনোফার্মের টিকা প্রয়োগ শুরু হাসপাতাল থেকে ফিরোজায় ফিরছেন খালেদা জিয়া সংসদে পরীমনি নিয়ে আলোচনা হয়, এই লজ্জা কোথায় রাখি: জাফরুল্লাহ মহামারির মধ্যেও যুদ্ধে বাস্তুচ্যুত ৮ কোটি ২০ লাখ মানুষ: জাতিসংঘ সিলেট জেলা ট্রাক পিকআপ কাভার্ড ভ্যান মালিক সমিতি নামক ঘোষিত নতুন সংগঠন অবৈধ মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তি: রেজ্যুলেশনের কপি নিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ব্রেন স্ট্রোক করেছেন সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার শাদিদ,ঢাকায় প্রেরণ

এমসি কলেজে ধর্ষণ: আসামিদের বিচার শুরুর আদেশ

  |  ১৭:৪০, জানুয়ারি ১৭, ২০২১

সিলেটের মুরারিচাঁদ (এমসি) কলেজে বেড়াতে যাওয়া এক নববধূকে ছাত্রাবাসে তুলে নিয়ে গণধর্ষণের ঘটনায় ছাত্রলীগ কর্মী সাইফুর রহমানসহ আট আসামির বিচার শুরুর আদেশ দিয়েছে আদালত।

রোববার আসামিদের উপস্থিতিতে চার্জ গঠন করেন সিলেটের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালের বিচারক মো. মোহিতুল হক।

গণমাধ্যমকে এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী রাশিদা সাইদা খানম।

এই আট আসামি হলেন- সাইফুর রহমান, শাহ মাহবুবুর রহমান রনি, তারেকুল ইসলাম তারেক, অর্জুন লস্কর, আইনুদ্দিন ওরফে আইনুল, মিসবাউল ইসলাম রাজন মিয়া, রবিউল ইসলাম ও মাহফুজুর রহমান মাসুম।

রাশিদা সাইদা খানম জানান, নিয়ম অনুযায়ী শুনানিতে আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগগুলো পড়ে শোনানো হয়।

এ সময় আসামি মাহবুবুর রহমান রনি ও অর্জুন লস্করের পক্ষে আইনজীবীরা জামিন চাইলে আদালত তা নামঞ্জুর করে। এছাড়া আসামিদের অব্যাহতির আবেদনও খারিজ করে দেয় আদালত।

গত ২৫ সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে ৯টার দিকে টিলাগড় এলাকায় এমসি কলেজে স্বামীর সঙ্গে বেড়াতে যাওয়া এক গৃহবধূকে ক্যাম্পাস থেকে তুলে ছাত্রাবাসে নিয়ে ধর্ষণ করার অভিযোগ ওঠে।

ঘটনার পরদিন তার স্বামী শাহপরাণ থানায় ছাত্রলীগকর্মী সাইফুর রহমানকে প্রধান আসামি করে ছয়জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও দুই-তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন।

ওই ঘটনা দেশব্যাপী ব্যাপক আলোচনার সৃষ্টি করে। প্রতিবাদে সরব হয় বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী ও অধিকার সংগঠন।

তদন্তে নেমে মোট আটজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। আটজনের সবাই আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন। ডিএনএ পরীক্ষাতেও আসামিদের নমুনার সাথে ঘটনাস্থলের ডিএনএ নমুনার মিল পাওয়া যায়।

তদন্ত শেষে গত বছরের ৩ ডিসেম্বর সাইফুরসহ আট জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা শাহপরাণ থানার পরিদর্শক ইন্দ্রনীল ভট্টাচার্য।

সেখানে বলা হয়, আট আসামির মধ্যে সাইফুরম, রনি, তারেক, অর্জুন, আইনুল ও রাজন ধর্ষণে সরাসরি জড়িত ছিলেন, বাকি দুজন তাতে সহযোগিতা করেছেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ