SylhetNewsWorld | সিলেট-৩ আসনে নৌকা পেতে এক ডজন প্রার্থীর দৌড়ঝাঁপ - SylhetNewsWorld
সর্বশেষ

সিলেট-৩ আসনে নৌকা পেতে এক ডজন প্রার্থীর দৌড়ঝাঁপ

  |  ১৬:১১, মে ২২, ২০২১

সিলেট-৩ আসনটি সিলেট জেলার দক্ষিণ সুরমা উপজেলা, ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা এবং বালাগঞ্জ উপজেলা নিয়ে গঠিত। পূর্বে বালাগঞ্জ উপজেলার শুধু ৩টি ইউনিয়ন দেওয়ান বাজার ইউনিয়ন, পূর্ব গৌরীপুর ইউনিয়ন ও পশ্চিম গৌরীপুর ইউনিয়ন অন্তর্ভুক্ত ছিল।[২] ২০১৮ সালের সীমানা পুনঃনির্ধারনে বালাগঞ্জ উপজেলার সবগুলি ইউনিয়ন অন্তর্ভুক্ত করা হয়।
সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচনে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেতে এক ডজন নেতা দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন। নানাভাবে তারা প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং ব্যানার-পোস্টার টাঙিয়ে তারা প্রার্থিতার জানান দিচ্ছেন। শুভেচ্ছা-মতবিনিময়ও করছেন তারা। আসনটিতে কে প্রার্থী হতে যাচ্ছেন তা নিয়ে চলছে আলোচনা ও চুলচেরা বিশ্লেষণ।

সিলেট-৩ আসনের (দক্ষিণ সুরমা, ফেঞ্চুগঞ্জ ও বালাগঞ্জ) সংসদ সদস্য এবং জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি জনপ্রিয় নেতা মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ১১ মার্চ মারা যান। তার মৃত্যুতে আসনটি শূন্য হয়। এরপর থেকেই মনোনয়নপ্রত্যাশী নেতারা কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে ধরনা দিতে শুরু করেন। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোটের শরিক দল জাতীয় পার্টি আসনটি চায়। আসনটি ছাড় দেওয়ার জন্য আওয়ামী লীগের কাছে তারা জোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। তবে আওয়ামী লীগের দলীয় সূত্র জানায়, আসনটিতে আওয়ামী লীগ এমপি ছিলেন তাই জাতীয় পার্টিকে ছাড় দেওয়ার প্রশ্নই আসে না। এ উপনির্বাচনে বিএনপি অংশ নেবে কিনা তা নিশ্চিত নয়। বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিলে দলটির একাধিক নেতা প্রার্থী হতে আগ্রহী বলে জানা গেছে। দক্ষিণ সুরমা, ফেঞ্চুগঞ্জ ও বালাগঞ্জ উপজেলা নিয়ে সিলেট-৩ আসন। এর ভোটার সংখ্যা ২ লাখ ৫৫ হাজার ৩০৯ জন। জুলাইয়ে সংসদীয় এ আসনের উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে বলে নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে। নির্বাচন কমিশনের এ ঘোষণার পর ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগে প্রার্থীর দীর্ঘ লাইন পড়েছে। দলের উপরের সারি থেকে শুরু করে মধ্যম সারি এমনকি নিচের সারির অনেক নেতা আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেতে তৎপর। তবে প্রয়াত এমপি মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীর সহধর্মিণী ফারজানা সামাদ চৌধুরী প্রার্থিতা ঘোষণার পর চিত্র অনেকটা পালটে গেছে। দলীয় নেতাকর্মীরা তাকে সমর্থন করছেন। তারা বলেন, উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে ফারজানা সামাদ চৌধুরীর বিকল্প নেই। ফারজানা সামাদ প্রার্থী হলে তারা তার পক্ষে মাঠে কাজ করবেন।

জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য হাবিবুর রহামান হাবিব মাঠে তৎপর রয়েছেন। তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে যোগ দিচ্ছেন। এ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী হিসাবে আলোচনায় রয়েছেন ফারজানা সামাদ চৌধুরী, আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, জেলা আওয়ামী লীগ নেতা হাবিবুর রহমান, বিএমএর কেন্দ্রীয় মহাসচিব ডা. এহতেশামুল হক চৌধুরী দুলাল, জেলা আওয়ামী লীগ নেতা শমসের জামাল, ম্যানচেস্টার আওয়ামী লীগ সভাপতি এনামুল হক, সিলেট জেলা বারের পিপি অ্যাডভোকেট নিজাম উদ্দিন, দক্ষিণ সুরমা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবু জাহিদ, সাবেক সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল ও যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির কার্যনির্বাহী সদস্য অ্যাডভোকেট আব্দুর রকিব মন্টুসহ আরও কয়েকজন।

এ ব্যাপারে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী ফারজানা সামাদ চৌধুরী বলেন, আমি মানুষের কাছে কৃতজ্ঞ। অতীতের প্রতিটি সংসদ নির্বাচনে আমি কাজ করেছি। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে যে উন্নয়ন কর্মযজ্ঞ চলছে তা অব্যাহত রাখতে এবং প্রয়াত এমপির অসমাপ্ত কাজ শেষ করতে দল আমাকে মানোনয়ন দিলে মানুষের খেদমত করব। দলের নেতাকর্মীরা আমার প্রতি যে ভালোবাসা দেখিয়েছেন তাতে আমি অভিভূত।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ