SylhetNewsWorld | গরম পানির ভাপ ও নাকে সরিষার তেল নিন: - SylhetNewsWorld
সর্বশেষ
 গ্রেটার সিলেট এসোসিয়েশন ইন স্পেনের নির্বাচন কমিশন গঠন স্পেনের মন্ত্রীর সাথে বাংলাদেশের রেলমন্ত্রীর দ্বিপক্ষীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত মাদ্রিদে গাজীপুর এসোসিয়েশনের নতুন কমিটি গঠন গ্রিসে রন্ধন শিল্পের প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে সনদ বিতরণ করলেন প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী গ্রিসে বাংলাদেশিদের জন্য শ্রমবাজার উন্মুক্ত ও বাংলা স্কুল প্রতিষ্ঠা সিলেট সদর উপজেলা ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন ফ্রান্সের কমিটি সিলেট চেম্বারের নির্বাচন শতভাগ নিরপেক্ষ করতে আমরা বদ্ধপরিকর: জলিল প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রীকে গ্রীস আওয়ামী লীগের সংবর্ধনা পাঁচদিনের সফরে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী গ্রিসে পাঁচদিনের সফরে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী গ্রিসে

গরম পানির ভাপ ও নাকে সরিষার তেল নিন:

  |  ১৭:২০, এপ্রিল ০১, ২০২১

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বেড়ে যাওয়ায় দেশবাসীকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাফেরার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি নিয়ন্ত্রণে আনতে, সে ক্ষেত্রে জনগণের সহযোগিতা দরকার। সবাইকে অনুরোধ করব— মাস্কটা পরে রাখার জন্য। কারণ এটি নাক থেকে সাইনাসে আক্রমণ করে। সবাইকে মাস্ক পরে থাকতে হবে।

এ ছাড়া আরও কিছু পরামর্শ দেন প্রধানমন্ত্রী। সেগুলো হচ্ছে— নাকে গরম পানির ভাপ নেওয়া। যখনই কেউ বেশি মানুষের সঙ্গে মিশবেন বা দোকানে যাবেন, মার্কেটে যাবেন বা মানুষের সঙ্গে কথা বলবেন, ঘরে ফিরে একটু গরম পানির ভাপ নেবেন। এগুলো করলে ভাইরাস দুর্বল হয়ে যাবে বলেও জানান তিনি।

‘আর একটি কাজ অবশ্য আমি নিজে করি। সেটি হচ্ছে— নাকে একটু সরষের তেল দেওয়া। আমি জানি এটি গ্রাম্য একটা ব্যাপার মনে হবে। আমি যখন ছোটবেলায় পুকুরে গোসল করতে যেতাম সবসময় আমার দাদি নাকে কানে আর নাভিতে সরষের তেল দিয়ে দিত। এটি করবেন।’

বৃহস্পতিবার দুপুরে একাদশ জাতীয় সংসদের দ্বাদশ অধিবেশনে সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীর মৃত্যুতে আনিত শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনাকালে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা করোনাভাইরাস মোটামুটি নিয়ন্ত্রণ করে ফেলেছিলাম। কিন্তু আবার সারা বিশ্বব্যাপী করোনার প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। হঠাৎ করে খুব দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে। বাংলাদেশেও ২৯, ৩০ ও ৩১ মার্চ এমন দ্রুত বেড়ে যাচ্ছে, যা চিন্তাও করা যায় না।

মানুষের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি মানার প্রবণতা বন্ধ হয়ে গেছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা ভ্যাকসিন দেওয়া শুরু করেছি বলে বোধহয় মানুষের মাঝে একটি বিশ্বাস জেগে গেছে। এ জন্য সবাই ভাবছিল কিছু হয়তো হবে না। আমি বারবার বলেছিলাম— ভ্যাকসিন নিলেও সাবধানে থাকতে হবে। স্বাস্থ্যবিধিগুলো মেনে চলতে হবে। এই স্বাস্থ্যবিধি মানাটা কিন্তু বন্ধ হয়েছে। আমরা হিসাব করে দেখেছি, যতগুলো বড় বড় বিয়ের অনুষ্ঠান। যারা এই বিয়েবাড়িতে গেছে, ফিরে এসে তাদের অনেকেই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। যারা কক্সবাজারসহ বিভিন্ন জায়গায় বেড়াতে চলে গেছেন। সেখান থেকে যারা এসেছেন তাদের বেশি করে ধরেছে। এই দাওয়াত, খাওয়া-টাওয়া, দোকানপাটে ঘোরাঘুরি অতিরিক্ত বেড়ে গিয়েছিল।’

করোনা মোকাবিলায় দেশবাসীর সহযোগিতা কামনা করে সরকারপ্রধান বলেন, ‘প্রথমে করোনাভাইরাস দেখা দেওয়ার পর যেভাবে সব কিছু নিয়ন্ত্রণ করেছিলাম। আমাদের সেভাবে আবার নিয়ন্ত্রণ করতে হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ