সর্বশেষ

অস্তিত্ব সংকটে সর্ব ইউরোপীয়ান আওয়ামী লীগ অনিয়মের অভিযোগ

  |  ০৫:৫৮, অক্টোবর ২২, ২০২০


ইউরোপ প্রতিনিধি:
২০১৯ সালে প্রথম লন্ডল সফরের সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, এম নজরুল ইসলাম এবং মুজিবুর রহমানকে ইউরোপ জুড়ে আওয়ামী লীগ ঢেলে সাজানোর জন্য দায়িত্ব অর্পণ করেন l
সর্ব ইউরোপ আওয়ামীলীগ এর পূর্ণাঙ্গ  কমিটি গঠন করার লক্ষ্যে, এম নজরুল ইসলাম ও মুজিবুর রহমানের আহবানে ইউরোপের সকল দেশের প্রবীণ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের নিয়ে, কর্মী সমাবেশ করা হয় অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনাতে l
সর্ব ইউরোপের এই কর্মীসভায় প্রস্তাব করা হয় ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে আওয়ামী লীগের প্রবীণ ও সাবেক নেতাদেরকে নিয়ে সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের  পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করার জন্য l
সর্ব ইউরোপ আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটির বিষয়টি  মাটিচাপা দিয়ে,এম জরুল ইসলাম ও মুজিবুর রহমান একক আধিপত্য বিস্তারের লক্ষ্যে ইউরোপের দেশ গুলিতে আঞ্চলিক কমিটি নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েন l
আর সেখানেই ঘটে বিপত্তি,কারণ নতুন নেতৃত্তের পালাবদল করতে গিয়ে,মর্যাদাহানি এবং পদচ্যূত হচ্ছেন দুর্দিনের ত্যাগী আওয়ামী লীগ নেতা কর্মী l
সঙ্গত কারনেই ইউরোপের বিভিন্ন দেশে আওয়ামী লীগের মধ্যে কোন্দল দেখা দেয়, আর এই সুযোগ জামাত-বি এন পির বিপথগামী বহিরাগত অবাধে অনুপ্রবেশ করতে শুরু করে আওয়ামী লীগ l আওয়ামী লীগের দুর্দিনে যারা সময় অর্থ সবকিছু বিলিয়ে দিয়ে আজ নিঃস্ব প্রায়, ইউরোপে তারা আজ লাঞ্ছিত অবহেলিত পদচুত্য l
আর যারা বিগত২০বছর অর্থ উপার্জনে ব্যস্ত ছিল মিটিং মিছিলে দেখা যায়নি কোনদিন, তারাই টাকার বিনিময়ে বিভিন্ন দেশের সভাপতি সেক্রেটারি দুর্দিনের-কর্মীরা আজ জুলুম নির্যাতনের শিকার l
মজলুম মানুষের আদর্শের প্রতীক, মুজিব কোট, আর এখন কোট এর আড়ালে আড়ালে নিজেকে সামলে নিয়েছে অনুপ্রবেশকারী l দলের দুর্নীতিবাজ লোভী ক্ষমতাসীন নেতার হাত ধরে প্রধানমন্ত্রীর সাথে ফটো তুলে, দাপটের সাথে নিজেকে আওয়ামী লীগের বড় নেতা পরিচয় দেয় l যারা সময়ের সাথে বদলে যায়, আর সব সময় সরকার দলে থাকে, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ তাদের হাতেই লাঞ্চিত হচ্ছে   ইউরোপের বিভিন্ন l
মূলত দুইটি কারণে অস্তিত্বের সংকটে এখন ইউরোপ জুড়ে আওয়ামী লীগের আঞ্চলিক সংগঠন গুলি, প্রথমত প্রবীনদের বাদ দিয়ে নতুন নেতৃত্ব ও পরিবর্তনের কথা বলে অনুপ্রবেশকারী ও জামাত দিয়ে কমিটি গঠন l
দ্বিতীয়তঃ যদি সর্ব ইউরোপ আয়ামী লীগ পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হতো, সেখানে ইউরোপের বিভিন্ন দেশের সাবেক সভাপতি সেক্রেটারি এবং প্রবীন নেতৃবৃন্দর জায়গা হলে, এখন এই সমস্যা হতো না l
ঘাঁটি একঝাঁক তরুণ নেতৃত্বের হাতে থাকতো প্রত্যেকটি দেশের আওয়ামী লীগ কমিটি,প্রবীনদের সহযোগিতায় নতুন কমিটি করলে অনুপ্রবেশকারী জামাত-বিএনপি’র জায়গা হতো না আওয়ামী লীগে l
ইউরোপের প্রত্যেকটি দেশে দুই থেকে তিন ভাগে বিভক্ত আওয়ামী লীগ,নিজের পাল্লা ভারী করতে এবং সমর্থক বাড়ানোর জন্য বহিরাগতদের নিয়ে স্থানীয় আওয়ামী লীগের মধ্যে চলেছে ভিশন প্রতিযোগিতা l
তার বড় প্রমাণ হচ্ছে স্পেনে যুদ্ধাপরাধীদের মুক্তি দাবিতে  জিনি সরব ছিল, ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে জামাত -বিএনপির নেতাকর্মীদের সংগঠিত করে স্পেনে সেভই বাংলার  উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল করে l
যথেষ্ট প্রমাণ থাকা সত্ত্বেও এস আর আই এস রবিন কি করে স্পেন আওয়ামী লীগের সভাপতি হয়,এনিয়ে কয়েক দফা সাংবাদিক সম্মেলন করেছে স্পেনের স্থানীয় তৃণমূল  আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ l কিন্তু সমস্যার এখনো কোনো সমাধান হয়নি, এম নজরুল ইসলাম ও মুজিবুর রহমান এর বিরুদ্ধে বিভিন্ন দেশের টাকার বিনিময়ে কমিটি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে l
এমন অভিযোগ গ্রীস মালটা সহ বিভিন্ন দেশেও পাওয়া গেছে, কিন্তু এখনো তার সঠিক ব্যাখ্যা দিতে পারেননি এম নজরুল ইসলাম ও মুজিবুর রহমান l
আওয়ামী লীগের সংবিধান ও নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করেই ইউরোপ জুড়ে,একক আধিপত্য বিস্তারে বেপরোয়া হয়ে পড়েছেন নবাগত দায়িত্বের এই দুই নেতা l
ফ্রান্স স্পেন গ্রীস মাল্টাসহ কয়েকটি দেশে আওয়ামী লীগের ৭০ ভাগ নেতা কর্মী বাহিরে রেখে,সম্মেলনের বিপরীতে ইউরোপের প্রত্যেকটি দেশে দুই জনের কমিটি সেই নিয়মে চলছে আজ পর্যন্ত l
সর্ব ইউরোপ আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বর্তমান উপদেষ্টা শ্রী অনিল দাস গুপ্ত,ও এম এ,গনি’র সাথে কথা বলে জানা যায় তাদের সাথে  কোন যোগাযোগ ও পরামর্শ নেই l
ইউরোপ জুড়ে আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতাকর্মীর খবর রাখছেন না তারা,এই দুই নেতার নিজের নিয়মে চলছে  হাজারো নেতাকর্মীর প্রাণের সংগঠন l
ইউরোপ জুড়ে অস্তিত্বের সংকট দেখা দিয়েছে আওয়ামী লীগে,এমন ভাবে চলতে থাকলে অচিরেই সংগঠন তার শক্তি সম্বল হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়বে,এমটাই মনে করেন  সর্ব  ইউরোপ আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতৃবৃন্দর!

 

Sylhetnewsworld.com/ 22 October/ Md Mashud Ahmed

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ