SylhetNewsWorld | ২১৬ দিন ধরে করোনায় আক্রান্ত এইচআইভি পজিটিভ নারী - SylhetNewsWorld
সর্বশেষ
 প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রীকে গ্রীস আওয়ামী লীগের সংবর্ধনা পাঁচদিনের সফরে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী গ্রিসে পাঁচদিনের সফরে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী গ্রিসে স্পেনে বাংলাদেশী শিশুরা স্পানিশ ক্লাবে ক্রীড়া নৈপূণ্য প্রদর্শন করছে বেগম জিয়ার রোগমুক্তির কামনায় কোকো স্মৃতি সংসদ ইউরোপের দোয়া এনআরবি ব্যাংকের ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ জামিল ইকবাল দেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ করদাতা নির্বাচিত স্পেনে স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে নির্বাচন কমিশনের মতবিনিময় সভা মাদ্রিদে গাজীপুর এসোসিয়েশনের নতুন কমিটি গঠন স্পেনে নির্বাচন কমিশনার খোরশেদ আলম মজুমদার, সদস্য সচিব মোঃ দুলাল সাফা বাংলাদেশ এসোসিয়েশন ইন স্পেনের নির্বাচন কমিশন গঠন

২১৬ দিন ধরে করোনায় আক্রান্ত এইচআইভি পজিটিভ নারী

  |  ১৬:০৭, জুন ০৬, ২০২১

একই শরীরে বাসা বেঁধেছে এইচআইভি পজিটিভ ও মারণ করোনা ভাইরাস। দক্ষিণ আফ্রিকার গবেষকরা ৩৬ বছরের এক নারীর দেহে এই দুটি মারাত্মক রোগের সন্ধান পেয়েছেন। ওই নারী ২১৬ দিন ধরে করোনা ভাইরাস বহন করছেন এবং সেই রোগীর শরীরেই নাকি করোনা ভাইরাস ৩২ বারের বেশি বার চরিত্র বদল করেছে বা সেটির মিউটেশন হয়েছে। বিশেষজ্ঞদের মতে, সাধারণ কোনো ব্যক্তির তুলনায় একজন এইচআইভি পজিটিভ রোগীর করোনায় মারা যাওয়ার সম্ভাবনা ২.৭৫ গুণ বেশি। যদিও এক্ষেত্রে আক্রান্ত নারীটি প্রাণে বেঁচে গিয়েছেন। তার শরীরে করোনার দক্ষিণ আফ্রিকা কিংবা বৃটেনে মেলা স্ট্রেইনগুলি পাওয়া গেছে। মেডিকেল জার্নাল ‘মেডআরএক্সআইভি’-তে প্রকাশিত হয়েছে একটি গবেষণাপত্র। সেখানেই জানা গেছে ওই নারীর কথা।

২০০৬ সালে তার শরীরে প্রথম বার এইচআইভি ধরা পড়ে। তারপর থেকে ক্রমশই খারাপ হয়েছে তার শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা। এরপর ২০২০ সালের সেপ্টেম্বরে তিনি করোনা আক্রান্ত হন। দেখা গেছে তারপর থেকে তার শরীরে ১৩ বার ভাইরাসের স্পাইক প্রোটিন মিউটেশন ঘটিয়েছে। সেই সঙ্গে আরো ১৯ রকমের জিনগত পরিবর্তন হয়েছে তার। অর্থাৎ সব মিলিয়ে ৩০ বারেরও বেশি বার মিউটেশন ঘটিয়েছে ভাইরাস। স্বাভাবিক ভাবেই এই ধরনের কেস থেকে কোভিড-১৯ এর মিউটেশনের ক্ষমতা সম্পর্কে আরো নতুন তথ্য জানা সম্ভব বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। গত এক বছরেরও বেশি সময় ধরে গোটা বিশ্বকে রক্তচক্ষু দেখানো এই মারণ ভাইরাসের এমন কাণ্ড এর আগে চোখে পড়েনি গবেষকদের। সেই কারণেই এমন ঘটনায় নড়েচড়ে বসেছেন সারা দুনিয়ার গবেষক ও বিশেষজ্ঞরা। রিপোর্ট অনুযায়ী এটা এখনও স্পষ্ট নয় যে, এই মিউটেশনগুলি নারীর মাধ্যমে অন্য কারো দেহে সংক্রমিত হয়েছে কিনা। তবে গবেষকরা জানান যে এটি সম্ভবত কোনো কাকতালীয় ঘটনা নয়, কারণ বেশিরভাগ নতুন ভ্যারিয়েন্টগুলি দক্ষিণ আফ্রিকার কোয়াজুলু নাটালের মতো অঞ্চল থেকে উদ্ভূত হয়েছে যেখানে ৪ জন প্রাপ্তবয়স্কের মধ্যে ১ জনেরও বেশি এইচআইভি পজিটিভ। এইচআইভি-সংক্রমিত ব্যক্তিদের কোভিড-১৯ হওয়ার ঝুঁকি বেশি এ সংক্রান্ত প্রমাণের তথ্য খুব কম পাওয়া গিয়েছে এবং একাধিক মেডিকেল কাকতালীয় ঘটনায় গবেষকরা জানিয়েছেন যে যদি এ ধরনের একাধিক কেস পাওয়া যায় অ্যাডভান্স এইচআইভি আক্রান্ত রোগীরা পুরো বিশ্বের জন্য ভ্যারিয়েন্ট কারখানায় পরিণত হতে পারে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ